1. [email protected] : admin001 :
  2. [email protected] : Khairul Islam Sohag : Khairul Islam Sohag
  3. [email protected] : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  4. [email protected] : JM Amin Hossain : JM Amin Hossain
  5. [email protected] : Soyed Feroz : Soyed Feroz
  6. [email protected] : Masud Sarder : Masud Sarder
  7. [email protected] : Kalam Sarder : Kalam Sarder
  8. [email protected] : Md. Imam Hoshen Sujun : Md. Imam Hoshen Sujun
  9. [email protected] : Royal Imran Sikder : Royal Imran Sikder
  10. [email protected] : amsitbd :
লালমনিরহাটে এ মৌসুমে  ধানে ‘নেক ব্লাস রোগ, দিশেহারা কৃষক | সময়ের খবর
সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০১:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
দুমকিতে বজ্রপাতে প্রান গেল অটোরিক্সা চালকের চরফ্যাসনে বোনের দোকান ঘর দখলে মরিয়া বড় ভাই পিরোজপুরের কাউখালীতে কৃষক কৃষানি প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত আমতলীতে ইমারত নির্মাণ শ্রমিকদের মারধোর আহত -৪ প্রবাসীর স্ত্রীকে মেরে বিষ খাইয়ে হত্যা চেষ্টা অভিযোগ! খাজুরায় রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্দেগে ডায়রিয়ার স্যালাইন বিতরন। সাপাহারে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ  নাগরপুরে খাল ভরাট করে রাস্তা নির্মা‌ণের কথা ব‌লে সরকা‌রি জলাশয় কে‌টে মা‌টি বি‌ক্রি, নেপ‌থ্যে ইউ‌পি সদস‌্য  দশমিনায় ওসির উদ্দেশ্যে তরুণীর ভিডিও বার্তা অপহরণ মামলা তুলে নিতে আত্নহত্যার হুমকি পাওয়ানা টাকা চাওয়ায় দশমিনায় ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে জখম

লালমনিরহাটে এ মৌসুমে  ধানে ‘নেক ব্লাস রোগ, দিশেহারা কৃষক

মোস্তাফিজুর রহমান লালমনিরহাট জেলা  প্রতিনিধি:
  • আপডেট: বৃহস্পতিবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২১
লালমনিরহাটে কৃষকের স্বপ্নের বোরো ধান মাঠ জুড়ে পাকতে শুরু করেছে। ধান ঘরে তুলতে প্রস্তত কৃষান কৃষানী। ঠিক সেই মুহুর্তেই আশাবাদী ফলনের বাধা হয়ে দাড়িয়েছে ‘নেক ব্লাস ধানের রোগ। কীটনাশক প্রয়োগ করেও কোনো লাভ না হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকেরা।সরেজমিনে দেখা গেছে, জেলার অধিংকাশ এলাকার পাকতে শুরু হওয়া ধান ক্ষেত গুলোতে আক্রমণ করেছে নেক বøাস্ট। এ রোগের প্রভাবে খেতের ধানের শিষ আস্তে আস্তে সাদা হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে।
ধান চিটা হয়ে যাচ্ছে।বিভিন্ন কীটনাশক ও ছত্রাক নাশক ব্যবহার করেও ‘নেক ব্লাস প্রতিকার করতে পারছে না কৃষকরা। এতে হতাশ হতে হচ্ছে ফসল নিয়ে স্বপ্নবাজ এ কৃষকদের।কৃষকদের ভাস্যমতে আগামী দু-সপ্তাহের মধ্যে জেলার অধিকাংশ এলাকার পাকা বোরো ধান মাড়াইয় পর্যায়ে যাবে। এই সময়ে নেক ব্লাস সংক্রমণ হওয়ায় ভালো ফলন নিয়ে শংকা তাদের।লালমনিরহাটের ৫টি উপজেলার বিভিন্ন মাঠ ঘুরে কৃষকদের কথা বলে জানা গেছে, অনেক জমির বোরো ধানের শিষ সাদা হয়ে গেছে। শিষের গোড়ায় প্রথমে এ রোগ দেখা দিয়ে ক্রমান্বয়ে তা পুরো শিষকে গ্রাস করে। এ অবস্থায় কৃষকেরা দুশ্চিন্তায় পড়েছেন।লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট এলাকার কৃষক আব্দুল মোতালেব বলেন, আমার ধান প্রায় পেকে গেছে, ধানের গাছ দেখে ভালো ফলনও হবে মনে হয়। কিন্তু ক্ষেতের কিছু কিছু অংশে ‘নেক ব্লাস সংক্রমণ হওয়ায় একটু চিন্তায় আছি।আদিতমারি উপজেলার দৈলজোর এলাকার কৃষক জয়নুল আবেদীন বলেন, আমার ধান খুব ভালো হয়েছিলো। হঠাৎ ‘নেক ব্লাস ধরে ক্ষেতের অনেক অংশের ধান গুলো পাতান হয়ে যাচ্ছে। কয়েক প্রকার কীটনাশক ব্যবহার করেও ভালো ফল পাচ্ছি না। আর পরামর্শ দিতে এখন পর্যন্ত এ এলাকায় কৃষি অফিসের কাউকেও চোখে পড়েনি আমার।
কালীগঞ্জ উপজেলার দলগ্রাম ইউনিয়নের পাটোয়াটারী গ্রামের কৃষক মিজানুর রহমার জানান, এবারে ২৮ ধান রোপন করে মাথায় হাতপড়ছে। ২৮ ধান যে লাগিয়েছে তার সম্পর্ন ধান ‘নেক ব্লাস সংক্রমণ ধরে ধানে চিটা ও পাতান পড়েছে। অত্র এলাকার এ রোগে সবার ধান নষ্ট হয়েগেছে।এ মৌসুমে ধানে নেক ব্লাস সংক্রমণ বিষয়ে জানতে চাইলে খামার বাড়ি লালমনিরহাট কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: শামীম আশরাফ বলেন, চলতি বোরো মৌসুমে জেলার পাঁচ উপজেলায় সাতচল্লিশ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল তবে চাষাবাদ হয়েছে সাতচল্লিশ হাজার ৬৫০ হেক্টর জমিতে (লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে যা ৪৫০ হেক্টর বেশি)।
তথ্যমতে চাষাবাদ কৃত ধানে বøাস্ট সংক্রমণ হয়েছে ৬.৯ হেক্টর এর মধ্যে বিভিন্ন ছত্রাক নাশক ব্যবহার করে ৪.৫ হেক্টর জমির বøাস দমন করা হয়েছে। চলতি মৌসুমের নেক বøাস্ট সংক্রমণ ঠেকাতে কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে কৃষকদের নানা ধরনের পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

আপনার মতামত এখানে লিখুন

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৭৭৩,৫১৩
সুস্থ
৭১০,১৬২
মৃত্যু
১১,৯৩৪
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
১,৩৮৬
সুস্থ
৩,৩২৯
মৃত্যু
৫৬
স্পন্সর: Next Tech
স্বত্বাধিকারী: রুরাল ইনহ্যান্সমেন্ট অর্গানাইজেশন (রিও) এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জনকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের সমাজসেবা থেকে নিবন্ধনকৃত।
Developed BY: Next Tech
Translate »